Skip to main content

এখনই তো ভারতীয়দের নিজস্ব অ্যাপ তৈরির "দারুণ সুযোগ": রবিশঙ্কর প্রসাদ

"আমরা চিনা অ্যাপগুলোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছি, এই সময়ে কি আমরা ভারতীয়দের তৈরি কোনও ভাল অ্যাপ নিয়ে আসতে পারি না?", বলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

এখনই তো ভারতীয়দের নিজস্ব অ্যাপ তৈরির "দারুণ সুযোগ": রবিশঙ্কর প্রসাদ
বিদেশি অ্যাপগুলোর উপর এই নির্ভরতা বন্ধের সময় এসেছে, বলেন তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী


এখনই ভারতীয়দের জন্যে একটা দারুণ সুযোগ, চিনা অ্যাপগুলোর (Chinese app) নিষেধাজ্ঞার প্রসঙ্গে বললেন কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ (Ravi Shankar Prasad)। সোমবারই ৫৯টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ করার কথা ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সরকার। এই অ্যাপগুলোর মধ্যে রয়েছে টিকটক, উইচ্যাট এবং ইউসি ব্রাউজারের মতো জনপ্রিয় অ্যাপও। তথ্য় প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, ভারতীয় গোয়েন্দারা মনে করছেন যে, অ্য়ান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্য়াটফর্মের এই মোবাইল অ্য়াপগুলোর অপব্য়বহার করে গ্রাহকদের গোপনীয়তা লঙ্ঘনের চেষ্টা করা হচ্ছে। এই পরিপ্রেক্ষিতেই রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, "আমরা চিনা অ্যাপগুলোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছি, এই সময়ে কি আমরা ভারতীয়দের তৈরি কোনও ভাল অ্যাপ নিয়ে আসতে পারি না? আমরা চাই এই সুযোগে বিদেশি অ্যাপগুলোর উপর দেশের মানুষের নির্ভরতা বন্ধ হয়ে যাক"।

লাদাখে ভারত ও চিন দু'দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের কারণে রীতিমতো উত্তেজনা বাড়ছে। দেশ জুড়ে চিনা পণ্য বয়কটেরও ডাক উঠেছে। এই সময় চিনা অ্যাপগুলো নিষিদ্ধ করার কথা বলে আসলে চিনকে ব্যবসায়িক তথা অর্থনৈতিকভাবে কড়া বার্তা দিতে চাইছে ভারত, এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

২৯ জুন তথ্য় প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয় যে, ওই চিনা অ্য়াপগুলি দেশের সার্বভৌমত্ব, অখণ্ডতা, দেশের সুরক্ষার জন্য় ক্ষতিকারক। সেকারণেই ওই অ্য়াপগুলিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তথ্য় প্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় অ্য়াপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

যদিও ভারতের তরফে চিনের ৫৯টি অ্যাপকে নিষিদ্ধ করা নিয়ে কড়া ভাষায় প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে চিন। জিনপিংয়ের দেশের তরফে বলা হয়েছে, ভারতীয় আইন এবং নিয়মকানুন কঠোরভাবে মেনেই অ্যাপগুলি পরিচালনা করা হয়। এই সময় অ্যাপগুলোকে নিষিদ্ধ করলে এই সমস্ত অ্যাপের সঙ্গে জড়িত কর্মীরাও চাকরি হারাবেন। বেজিং এর তরফে ভারতকে এই বার্তাও দেওয়া হয় যে, ব্যবসার অধিকার রক্ষা করা দু'দেশেরই দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

Comments